সোমবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১০

অন্য আলোয় রবীন্দ্রনাথ--১

(লিংক--ফেসবুক
লিংক--সচলায়তন)
by Kulada Roy on Sunday, September 12, 2010 at 1:02pm

রবীন্দ্রনাথ হিন্দু ছিলেন--প্রজাপীড়ক জমিদার ছিলেন ইত্যাদি অপপ্রচার পাকিস্তান আমল থেকেই সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী নানাভাবে করে আসছে। সাজ্জাদ হোসাইন, ফররুখ আহম্মদ, সৈয়দ আলী আহসান, তালিম হোসেন, খোন্দকার আব্দুল হামিদ গঙ এ নিয়ে নানাভাবে প্রবন্ধ, পুস্তকাদি লিখেছেন। সাজ্জাদ হোসাইন একাত্তরে পাক্স্তানী হানাদার বাহিনীর দোসর ছিলেন। আমৃত্যু সেই পাকিস্তানী ভাবনা প্রকাশ করে গেছেন। রবীন্দ্র বর্জনের আহবান জানিয়েছিলেন পাকিস্তান আমলে ৪০জন তালেবর কবি সাহিত্যিক। এরা সাজ্জাদ হোসাইনের মত একাত্তরের খুনী যুদ্ধাপরাধীদের দোসর ছিলেন--এখনো তাই আছেন। মুশকিল হল এরা মারা গেছেন। তারা কাজটি শেষ করতে পারেন নাই। এ জন্য তারা নষ্টবীজ রেখে গেছেন। বাংলাদেশে জামাত এই নষ্টবীজের অঙ্কুর করেছে। ফরহাদ মজহার, সলিমউল্লাহ খান অই দোসরদের বিষ বৃক্ষটির গোড়ায় পানি দিচ্ছেন। ফরহাদ মজহার তো ঠাকুরের বেটাকে এ কারণে আল্লাহর কাছে ঠাকুরেরর বেটার নামে নালিশ ঠুকেছে বলেছেন--তাঁকে তিনি ক্ষমা করেন নাই। মজহারের সাক্ষাৎ শিষ্য সাদ কামালী এই রবীন্দ্র গীবতের ধারাবাহিক দায়িত্ব পালন করছেন। সাদ কামালীর এই সব গীবত সাহিত্য পত্রিকা অগ্রবীজ, দৈনিক সংবাদসহ নানাবিধ পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। বাংলাদেশের মিডিয়া জামাতীদের পয়সায় এরা দখল করেছে। চেষ্টা করছে প্রতিক্রিয়াশীলতার গভীরতর অন্ধকারে বাংলাদেশকে ঘিরে ফেলা।

ফরহাদ, সাদ কামালী, ব্রাত্য রাইসুদের সৃষ্ট এইসব অপঅন্ধকার সেই খুনে জামাতীদের নুনের মূল্য পরিশোধ মাত্র। এই অপপ্রচারের অন্ধকারের আড়ালে সত্যিটাকে একটু খুঁজে দেখতে সচলায়তনে এই সিরিজটি প্রকাশিত হচ্ছে। লিংক--http://www.sachalayatan.com/porimanob/35043 । মাঝে মাঝে এই অন্য আলোয় রবীন্দ্রনাথকে দেখার চেষ্টা করা যাবে। সঙ্গে থাকুন।

.................................................................................................................

রবীন্দ্রনাথ কতটা হিন্দু ছিলে--



জোড়া সাঁকোর ঠাকুর বাড়িতে খুব ধুমধাম করে জগদ্ধাত্রী ও সরস্বতী পূজা হত। ঠাকুর পরিবারটি ছিল বৈষ্ণবভক্ত। রবীন্দ্রনাথের ঠাকুর্দা দ্বারকানাথ ঠাকুর পূর্বপৃরৃষের এই দেবদ্বিজে ভক্তিতে অটুট ছিলেন। তিনি নিজে প্রতিদিন পূজা করতেন এবং হোম দিতেন। দুজন ব্রাহ্মণ ছিল বটে—তবে তারা শুধুমাত্র পূজার ভোগ দিতেন আর আরতি দিতেন।

ইংরেজদের সঙ্গে দ্বারকানাথের যোগাযোগ ছিল। তার বাড়িতে সাহেব-মেমদের নিমন্ত্রণ হত। তিনি তাদের সঙ্গে উপস্থিত থাকতেন। কিন্তু খেতে বসতেন না। দূরে দাঁড়িয়ে তদারকী করতেন। খাওয়া দাওয়া শেষ হলে তিনি কাপড় চোপড় পাল্টে ফেলতেন। গঙ্গাজল ঢেলে শুদ্ধ হতেন।



পরে ব্যবসায়ের খাতিরে তিনি যখন আরও ঘনিষ্ট হলেন ইংরেজদের সঙ্গে তখন তিনি এই ছুৎ মার্গটি ধরে রাখতে পারলেন না। তাদের সঙ্গে খেতে বসতে হল। তখন তিনি আর মন্দিরে ঢুকতেন না। ১৮ জন ব্রাহ্মণ পূজার সব দায়িত্ব পালন করতেন। আর পূজার সময় দূর থেকে তিনি প্রণাম করতেন।

এক সময় রাজা রামমোহনের সঙ্গে তার পরিচয় হল—তখন তাঁর একেশ্বরবাদে বিশ্বাসী হলেন। কিন্তু বাড়িতে দীর্ঘদিনের প্রচলিত লক্ষ্মী-জনার্দন, দুর্গা, জগদ্ধাত্রী, সরস্বতী ইত্যাদি পূজা ধুমধামের সঙ্গেই হত। কিন্তু নিজে পূজায় বসেন নি। তিনি গায়ত্রী মন্ত্রটি জপ করতেন। বিদেশে বসেও গায়ত্রী মন্ত্র জপ শেষ না হলে কোনো রাজপরিবারকেও দর্শন দিতেন না।

দ্বারকানাথের মা অলকানন্দা ছিলেন খুব ধর্মশীলা। তিনি ছিলেন মৃতবৎসা। দ্বারকানাথকে দত্তক নিয়েছিলেন। সন্যাসীদের প্রতিও তাঁর বিশ্বাস ছিল। দ্বারকানাথের ম্লেচ্ছ ইংরেজদের সঙ্গে ওঠা বসা অলকাসুন্দরী পছন্দ করতেন না। কিন্তু ব্যবসায়ের কারণে এই মেলামেশাকে বাঁধা দিতেন।তাদের সঙ্গে একটু আধটু মদও খেতে দ্বারকাকে অনুমতি দিতেন । কিন্তু গোমাংস খাওয়ার ব্যাপারে একেবারে না।



দ্বারকানাথের স্ত্রী দিগম্বরী দেবী ছিলেন তাঁর শ্বাশুড়ি অলকাসুন্দরীর চেয়েও কঠোর। তিনি নিজে খুব ভোরে ঊঠতেন। এক লক্ষ হরিনামের মালা ছিল তার। এটার অর্ধেক জপে খেতে বসতেন। তারপর বাকীটা শেষ করতেন। লক্ষ্মীনারায়ণের নিয়মিত সেবা করতেন। বাড়িতে ইংরেজরা আসা যাওয়া করলেও তিনি তাদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হন নি। তাঁর স্বামী মদমাংস ও ম্লেচ্ছসঙ্গ পছন্দ আরম্ভ করলে তিনি স্বামী সঙ্গও ছেড়ে দেন। দূর থেকে তার সেবাযত্নাদির তদারকী করতেন। কখনো স্বামীর ছোঁয়া লাগলে স্নান করে শুদ্ধ হয়ে নিতেন। ধর্মের কারণে দ্বারকানাথ ও তার স্ত্রী দিগম্বরীর সম্পর্ক হয়ে উঠেছিল ঝামেলাপূর্ণ।

ঠাকুরমা অলকাসুন্দরী দেবীর কাছে দ্বারকানাথের পুত্র দেবেন্দ্রনাথ মানুষ। ঠাকুরমার শালগ্রাম শিলার জন্য তিনি মালা গেঁথে দিতেন। স্নান করে তার সঙ্গে ছাদে দাঁড়িয়ে সূর্যমন্ত্র জপ করতেন। কালীঘাটে পূজা দিতে যেতেন।দেবেন্দ্রনাথ লিখেছেন,“ প্রথম বয়সে উপনয়নের পর প্রতিনিয়ত যখন গৃহেতে শালগ্রাম শিলার অর্চ্চনা দেখিতাম, প্রতি বৎসরে যখন দুর্গা পূজার উৎসবে উৎসাহিত হইতাম, প্রতিদিন যখন বিদ্যালয়ে যাইবার পথে ঠনঠনিয়ার সিদ্ধেশ্বরীকে প্রণাম করিয়া পাঠের পরীক্ষা হইতে উত্তীর্ণ হইবার জন্য বর প্রার্থনা করিতাম, তখন মনে এই বিশ্বাস ছিল যে, ঈশ্বরই শালগ্রামশিলা, ঈশ্বরই দশভুজা দুর্গা, ঈশ্বরই চতুর্ভুজা সিদ্ধেশ্বরী।“



তিনি যুবক হলে রাজারামমোহন রায়ের সংস্পর্শ্বে এলেন। পৌত্তলিকতা ও প্রতিমা পূজার ঘোর বিরোধী হয়ে উঠলেন। তিনি সংকল্প করেছিলেন, “ কোন প্রতিমাকে পূজা করিব না, কোন প্রতিমাকে প্রণাম করিব না, কোন পৌত্তলিক পূজার নিমন্ত্রণ গ্রহণ করিব না।'' দেবেন্দ্রেনাথ তার ভাইদের সঙ্গে নিয়ে একটি পৌত্তিলকতা বিরোধী দলও গড়লেন। তাঁদের প্রতিজ্ঞা ছিল, ‘’পূজার সময়ে আমরা দালানে কেহই যাইব না, যদি কেহ যাই, তবে প্রতিমাকে প্রণাম করিব না” ১৮৩৯ সালে অক্টোবর মাসে দেবেন্দ্রনাথের বয়স যখন বাইশ বছর তখন তাঁদের বাড়িতে দুর্গাপূজা হচ্ছিল। তিনি পূজার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করলেন। তিনি পূজার সময়ে বাড়ির অন্যপ্রান্তে পুকুরের ধারে চুপ করে বসেছিলেন। সেখানে বন্ধুবান্ধবদের নিয়ে একশ্বরবাদি তত্ত্ববোবোধিনী সভা গড়ে তুললেন। এরপর তিনি দূর্গা পূজার সময়ে কলকাতা ছেড়ে দেশ পর্যটনে বের হয়ে যেতেন। তিনি তাঁদের বাড়ি থেকে পূর্বপুরুষের চিরকালীন পূজা ও উৎসব উঠিয়ে দিতে পারেন নি। কিন্তু শরীকদের সঙ্গে আলোচনা করে জগদ্ধাত্রী পূজা জোড়া সাঁকোর ঠাকুরবাড়ি থেকে তুলে দিতে পেরেছিলেন।



রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর পিতা দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুরের প্রবর্তিত ব্রাহ্ম ধর্মাদর্শের একনিষ্ঠ অনুসারী ছিলেন। তার ধর্মাদর্শে মূর্তি বা প্রতিমা পূজার কোনো স্থান ছিল না। বাংলাদেশের হিন্দুদের বড় উৎসব দুর্গা পূজায় কখনো সামিল হন নি। তিনি উপনিষদের মনের মানুষের সন্ধানই করেছেন চিরকাল। তবে বাঙালীদের জীবনে দুর্গোৎসবের সামাজিকতা এবং মানবিকতার দিকটিকে তিনি প্রশংসা করেছেন। ছিন্নপত্রে তিনি লিখেছেন, (পূজা উপলক্ষ্যে) বিদেশ থেকে যে লোকটি এইমাত্র গ্রামে ফিরে এল তার মনের ভাব, তার ঘরের লোকদের মিলনের আগ্রহ, এবং শরৎকালের এই আকাশ, এই পৃথিবী, সকালবেলাকার এই ঝিরঝিরে বাতাস এবং গাছপালা তৃণগুলা নদীর তরঙ্গ সকলের ভিতরকার একটি অবিশ্রাম সঘন কম্পন, সমস্ত মিশিয়ে বাতায়নবর্তী এই একক যুবকটিকে (রবীন্দ্রনাথ) সুখে দুঃখে একরকম চরম অভিভূত করে ফেলছিল।“



১৮৯৪ সালে কলকাতায় দুর্গোৎসব হচ্ছেল। ব্রাহ্ম রবীন্দ্রনাথের কোনো প্রত্যক্ষ বা সামাজিক যোগ নেই। তখন তিনি একদিন ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের দৌহিত্র সুরেশচন্দ্র সমাজপতির বাড়িতে যেতে যেতে দেখলেন, পথের দুধারে অধিকাংশ দালানে ‘দুর্গার দশ-হাত-তোলা প্রতিমা তৈরি হচ্ছে’। সেই মূর্তিকে কেন্দ্র করে ‘আশেপাশের সম্স্ত বাড়ির ছেলের দল ভারী চঞ্চল হয়ে উঠেছে।‘ তাঁর তখন মনে হয়েছে, দেশের ছেলে-বুড়ো সকলেই হঠাৎ দিন কতোকের মত ছেলে-মানুষ হয়ে উঠে, সবাই মিলে একটা বড়ো গোছের পুতুল-খেলায় মেতে উঠেছে।এই খেলাটিকে তিনি উপেক্ষা করতে পারছেন না--অবজ্ঞাও করতে পারছেন না। তিনি লিখেছেন, বাইরে থেকে দেখে মনে হয় বৃথা সময় নষ্ট। কিন্তু সমস্ত দেশের লোকে যাতে মনে করে একটা ভাবের আন্দোলন একটা বৃহৎ উচ্ছ্বাস এনে দেয় সে জিনিসটি কখনোই নিষ্ফল এবং সামান্য নয়। এই পূজা পার্বন যে মানুষকে একত্র করে মিলনে বাঁধে এইটিই তাকে টেনেছে--কোনো পূজাকে নয়।তিনি মিলনের মধ্য দিয়ে অসীমকে পাওয়া যায়। কোনো দেবতাকে নয়।



কেননা রবীন্দ্রনাথ রবীন্দ্রনাথ ছিলেন--হিন্দু নয়।





সূত্র :

১) আত্মজীবনী--মহর্ষী দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর

২) রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর--ছিন্নপত্রাবলী

৩) পূর্ণানন্দ চট্টোপাধ্যায়--রবীন্দ্রনাথ ও রবীন্দ্রনাথ

৪) সমীর সেনগুপ্ত--রবীন্দ্রনাথের আত্মীয়স্বজন



Comment · LikeUnlike · Share

*
*
Guruvai Totshomo Bangalee, বিপ্লব রহমান, Momin মানব and 21 others like this.
*
o
Lutfor Rahman Riton রবীন্দ্রনাথ রবীন্দ্রনাথই, হিন্দু নন।
Yesterday at 1:15pm · LikeUnlike · 4 peopleLoading... ·
o
Kazi Mamun রবীন্দ্রনাথগ জমিদার ছিলেন এই অযুহাতে সাহিত্য চর্চার জন্য জমিদারী থাকতে হবে এবং এ জন্য বজরায় চড়ে নদীতে চড়ে ঘুরে বেড়াতে হবে এমন কথাও কিছুদিন আগে শুনেছি। কিন্তু রবীন্দ্রনাথ এর সেই জমিদারী কেমন জমিদারী ছিল কেমন দেনাগ্রস্থ ছিলেন তিনি, মেয়ের যৌতুক দিতে না পারার কারণে কিভাবে তাকে এবং তাঁর মেয়েকে এটা ভোগ করতে হয়েছে এ খবর অনেকেই জানে না। ব্যস্ততার মধ্যেও মন্তব্য না করে পারলাম না! চমৎকার প্রবন্ধ দাদা, শেয়ার করছি!
Yesterday at 1:19pm · LikeUnlike · 4 peopleLoading... ·
o
Ripon Kumar Dey চমৎকার বিশ্লেষণধর্মী লেখা।
Yesterday at 1:25pm · LikeUnlike ·
o
প্রণব আচার্য্য Pranab Acharjee দাদা, আপ্নেও হিন্দু ।। সেইকারনে ব্রাহ্মণ্যবাদী রবীন্দ্রের পক্ষ নিছেন ;);)
Yesterday at 1:55pm · UnlikeLike · 1 personLoading... ·
o
Proloy Hasan শুনেছিলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় যেন ঢাকাতে না হয়ে কোলকাতায় হয়, সেজন্য রবী ঠাকুরের চেষ্টার কোন ত্রুটি ছিলো না। শেষ পর্যন্ত পাচ্যের অক্সফোর্ড ঢাকাতে হওয়াতে তিনি বেশ মনক্ষুন্ন ছিলেন। এই ঘটনার কি কোন সত্যতা রয়েছে নাকি স্রেফ গুজব?
Yesterday at 1:59pm · LikeUnlike ·
o
Kazi Mamun প্রলয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ঢাকায় না হয়ে করাচীতে হোক এমনও অনেকে চেয়েছেন এটাও পাবেন। ভিত্তিপ্রস্তর করার পরও একরাতের মধ্যে বর্তমান চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কুমিল্লা থেকে সরিয়ে চট্টগ্রামের জঙ্গলে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। একই দেশ যখন থাকে যে যেখানে বসবাস করে সেই জায়গার জন্য একটু টান থাকবেই, এর জন্য কাউকে কি দোষারোপ করা যাবে?
Yesterday at 2:08pm · LikeUnlike · 2 peopleLoading... ·
o
প্রণব আচার্য্য Pranab Acharjee
কাজী, করাচীর কথা যখন বললেন, তখন আরেকটা কথাও কই; রবীন্দ্রনাথ ঢাবির বিরোধীতা করছেন, এটা যাদের কাছে অমাজর্নীয় অপরাধ হিসাবে বিবেচিত, তারা কিন্তু তাগো লগেই দোস্তি পাতছে যারা বাঙলাদেশ নামক দেশটাই চায় নাই। খিয়াল কৈরা খুব।।

প্রলয়>> রবীন্দ্রনাথ কিন্...তু ঢাবির আমন্ত্রণে ক্যাম্পসে এসেছিলেন।

নিজের ভুল স্বীকার করার মতো অকপট ব্যক্তিত্ব ছিলো তাঁর।
তিনি ইটালীর একনায়ক মুসোলিনীর প্রশস্তি গেয়েছিরেন একবার। কিন্তু পরে যখন মুসোলিনী সম্পর্কে জানতে পারলেন তখন তিনি নিজের ভুল বুঝতে পেরে, তার পুর্বেকার অবস্থানকে (মুসোলিনী সম্পর্কে প্রশস্তি গাওয়াকে) রীতিমতো নিজের পাপ হিসাবে চিহ্নিত করেন।See More
Yesterday at 2:18pm · LikeUnlike · 2 peopleLoading... ·
o
Proloy Hasan
‎@কাজী সাহেব, ঘটনা তাহলে সত্য! আমি এতদিন ভেবেছিলাম গুজব। যাই হোক, ঘটনা যদি সত্য হয়েও থাকে তাহলেও কথা কিন্তু সেটা না, কথা হলো তৎকালীন কলকাতায় নামকরা এক্টা বিশ্ববিদ্যালয় (কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় ) থাকার পরও সেখানে আরেকটা বিশ্ববিদ্যালয়ের দরকার ক...ি ছিলো যেখানে ঢাকাতে তখন বড় কোন বিশ্ববিদ্যালয় ছিলো না। বরং তার মত উদারপন্থী লেখকের তো উচিৎ ছিলো দুই বাংলার মানুষের কথা ভেবে অন্তত একটা বড় বিশ্ববিদ্যালয় ঢাকাতে হতে দেয়া। এতে তার বড়ত্ব তো বাড়তো বই কমত না। তিনি জানতেন ঢাকাতে তার প্রচুর ভক্ত রয়েছেন, তারপরেও কলকাতার কথা ভাবাটা যেন তার স্বদেশ প্রেমের চেয়ে ঢাকার প্রতি অবজ্ঞাটাই প্রকটাকারে ফুটিয়ে তোলে। "একই দেশ যখন থাকে যে যেখানে বসবাস করে সেই জায়গার জন্য একটু টান থাকবেই, এর জন্য কাউকে কি দোষারোপ করা যাবে?" - দোষারপ করা যেত না যদি ব্যাপারটা যদু-মদু, রাম-সেন করতো। কিন্তু এখন সেটা যাবে কারন এটা স্বয়ং রবী ঠাকুর করেছেন। তাকেঁ আর যাই হোক, সস্তা স্বদেশপ্রেম তথা স্বার্থপরতা মানায় না। রবী ঠাকুরের প্রতি আমার কোন ব্যক্তিগত ক্ষেদ নেই, আমি জানি যে দোষে-গুনেই মানুষ, তিনি তো আর দেবতা নন যে সমস্ত ভুল-ত্রুটির উর্ধে থাকবেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সক্রিয় বিরোধীতা করলেও রবীঠাকুর রবীঠাকুরই থাকবেন। সমালোচিত হলেও তার জনপ্রিয়তা একচুলও কমবে না, এমনকি ঢাকাতেও কমবে না। কিন্তু তারঁ দোষগুলোকে ঢেকে তাকে দেবতা বানাবার বৃথা চেষ্টাকে হাস্যকর আর বিরক্ত লাগে।See More
Yesterday at 2:22pm · LikeUnlike · 1 personLoading... ·
o
Ashis Majumder
রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে অনেকেই অনেক নেতিবাচক কথা বার্তা বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় লিখেছেন, মুক্তমনা ওয়েব্লগ'এ এমন একটা লেখা পড়েছি। এই সব কুকথায় রবীন্দ্রনাথেরও কখনো কিছু এসে যায়নি এবং রবীন্দ্রানুরাগীদেরও কিছু এসে যায় নি। এগুলো ছিল এবং থাকবে। একটা পাহ...াড়কে ভাঙ্গার কি আপ্রান চেষ্টা আমরা যুগে যুগে দেখেছি। রবীন্দ্রানাথের সাহিত্য সৃষ্টি তার একামাত্র প্রতিবাদ। রবীন্দ্রনাথ যারা পড়েন'না তারাই এমন বাজে কথা বলে বেড়ান সমাজে। এবং বিভক্তি তৈরী করেন। এদের থেকে সাবধান থাকা যেমন জরুরী তেমনই জরুরী রবীন্দ্রনাথ পড়া। সবশেষে বলব, তপোব্রত ঘোষের রবীন্দ্র জিজ্ঞাসুর ডায়রী বইটি পড়লে অনেক অজানা প্রশ্নের উত্তর খুজে পাবেন আরো বৃহত কলেবরে। ধন্যবাদ দাদা।See More
Yesterday at 2:35pm · LikeUnlike · 2 peopleLoading... ·
o
Kazi Mamun
‎@প্রলয় হাসান- না আমার মন্তব্য'র মানেই রবীন্দ্রনাথ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর বিরোধীতা করেছেন এমনটা নয়! এটা প্রমাণ সাপেক্ষ কুৎসা হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি কারণ প্রণব দাই ব্যাখ্যা করেছেন, আমি আর না করি। রবীন্দ্রনাথ দেবতা ছিলেন এমন ভাবনা ভুল। এ দাবী তি...নি নিজেও কোনোদিন করেন নি, সুতরাং তাঁর কোনো ভক্ত যদি বাড়িয়ে কিছু বলে এর জন্য তিনি দোষ কাধে নিতে পারেন না। আপনি যে বিষয়টা ধরেছেন এটা খুব ক্ষুদ্র এরচেয়েও অনেক বড় একটা বিষয় হলো 'বঙ্গভঙ্গ' সম্পর্কিত ইস্যুতে রবীন্দ্রনাথের অবস্থান। যার ফলশ্রুতি দুই বাংলার ইতিহাস অনেক বদলে যায়। এর জন্য আমি রবীন্দ্রনাথ কে রাজনৈতিক অদূরদর্শীও বলি। কিন্তু এতে সাহিত্যিক বা শিল্পী রবীন্দ্রনাথ এর কদর কমে যায় এমনটা ভাবাও অন্যায়।See More
Yesterday at 2:35pm · LikeUnlike · 2 peopleLoading... ·
o
Proloy Hasan
‎@প্রণব, উহুঁ, এটা আপনার ভুল ধারনা। রবী ঠাকুরের এই বিরোধীতার কথা প্রথম শুনি আমার কলেজের স্যারের কাছে। তারঁ পিতা একজন শহীদ মুক্তিযোদ্ধা, স্যার একজন সংস্কৃত প্রেমিক। স্যারের চাচা ঘাতক দালাল নির্মুল কমিটির সক্রিয় সদস্য।

আমি বাকীদের কথা জানি না..., বাঙালী এবং বাংলাদেশী হিসাবে আমার জাতীয়তাবোধ অনেক বেশী স্পর্শকাতর। বরং বাঙালী বলার চেয়ে আমি নিজেকে বাংলাদেশী বলে পরিচয় দিতে বেশী ভালবাসি। ৭১ এ ভারতের অবদান অনস্বীকার্য, কিন্তু তাই বলে তারা বাংলাদেশীদের মাথা কিনে নেয়নি। পাকিস্থান যেমন বাংলাদেশের শত্রু, তেমনি এটাও সত্য যে ভারত বাংলাদেশের প্রভু নয়। বিএনপি হলেই পাকিস্তানপ্রিতী এবং আওয়ামী লিগ হলেই ভারতপ্রিতী - এইরকম বায়াসড ধ্যান ধারনা থেকে বেরিয়ে আসা প্রয়োজন। কেন, আমাদের নিজস্ব কোন স্বকীয়তা থাকবে না কেন? আমরা বাংলাদেশী, বাংলাদেশপ্রিতী থাকতে দোষ কোথায়? রবীঠাকুর একজন বাঙালী, কিন্তু বাংলাদেশী নন। বংশ পরস্পরায় আমাদের অহংকার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরোধীতা করার পরও আমি কাউকে মহামানবের স্থান দিতে পারি না, সে রবী ঠাকুর হোক বা ঈশ্বরের কোন প্রেরীত পুরুষ হোক। তিনি নিজের ভুল স্বীকার করার মত উদারমনা ছিলেন, জানি, কিন্তু কই, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাপারে তার সিদ্ধান্ত ভুল ছিলো, এমন ঘোষনা কি তিনি কোথাও দিয়েছেন? পাবলিকলি বা নন-পাবলিকলি? ইটালির মুসোলিনীর সর্মথন করা পাপ, আর বাংলাদেশীদের অবজ্ঞা করা কি পূণ্য? কেন!! ওটা "ইউরোপের" ইটালি আর এটা অচ্ছ্যুত পূর্ববাংলা বলে?"See More
Yesterday at 2:37pm · LikeUnlike ·
o
প্রণব আচার্য্য Pranab Acharjee প্রলয়, আমার কোন ধারনাটা ভুল?
Yesterday at 2:39pm · LikeUnlike ·
o
Kazi Mamun প্রলয় আপনার কি এখনো ঐ বয়স আছে যে ছোট বেলায় স্যার এর কাছ থেকে শোনা গল্পকেই বিশ্বাস করবেন? এসব বিষয় নিয়ে কথা বলতে গেলে তথ্য প্রমাণ থাকা চাই, শোনা কথা নয়! প্রাইমারী স্কুলে আমার এক স্যার বলতো, স্যার এর দাদা উটপাখির কাঁধে চড়ে বাংলাদেশে এসেছে, আমি আশ্চর্য হয়ে সে কথা শুনতাম। আমি কি তাই বিশ্বাস করবো এখনো?
Yesterday at 2:42pm · LikeUnlike ·
o
Proloy Hasan
‎"করাচীর কথা যখন বললেন, তখন আরেকটা কথাও কই; রবীন্দ্রনাথ ঢাবির বিরোধীতা করছেন, এটা যাদের কাছে অমাজর্নীয় অপরাধ হিসাবে বিবেচিত, তারা কিন্তু তাগো লগেই দোস্তি পাতছে যারা বাঙলাদেশ নামক দেশটাই চায় নাই। খিয়াল কৈরা খুব।। "

রবীঠাকুর ঢাবির বিরোধীতা কর...েছেন, এটা আমার সেই স্যারের কাছে অমার্জনীয় অপরাধ। সুতরাং, আপনার সূত্রমতে, তিনি বাঙলাদেশ নামক দেশটাই চায় নাই। খেয়াল করলাম খুব। এবার বুঝে নিন আপনার কোন ধারনাটা ভুল। :)See More
Yesterday at 2:43pm · LikeUnlike ·
o
Kazi Mamun আপনার স্যার এর কাছ থেকে শোনা কথা ছাড়া আর কোনো রেফারেন্স থাকলে উল্লেখ করুন তাহলে আলোচনা সুবিধাজনক হবে। ভারত আমাদের বন্ধু না শত্রু এ আলোচনা এখানে অপ্রাসঙ্গিক।
Yesterday at 2:44pm · LikeUnlike · 2 peopleLoading... ·
o
Proloy Hasan ‎@কাজী, আমি যখন এই ঘটনাটি শুনেছিলাম, তখনও বিশ্বাস করি নাই, এখনো করি না। কিন্তু ঘটনা "যদি" সত্য হয়ে থাকে, তাহলে কোন যক্তি বা অজুহাতেই রবীঠাকুর আমার কাছে আর মহাপুরুষ থাকবে না। তাকেঁ আমি আজীবন একজন স্বার্থান্বেষী মানুষ বলেই জানবো। ঘটনা যদি মিথ্যা হয়, তাহলে যারা তার বিরুদ্ধে কুৎসা রটনা করেছে, তাদের মুখে আজীবন থুথু ছিটাবো। দেখুন, আপনাকে দেয়া রিপ্লাইয়ের শুরুতে বলেছি, "ঘটনা যদি সত্য হয়েও থাকে", তার মানে আমি এখনো ঘটনার সত্যতার ব্যাপারে নিশ্চিত নই।
Yesterday at 2:46pm · LikeUnlike ·
o
Ashis Majumder রবীন্দ্রনাথের ধর্ম ভাবনা বুঝতে হলে রবীন্দ্রনাথকে পড়তে হবে। রবীন্দ্রনাথকে সাম্প্রদায়ীক হিন্দু বলে আজ যারা গালি দিয়ে থাকেন তারা রবীন্দ্রনাথ কখনই পড়েনা। এর তার মুখে শুনে কথা বলে। এই সব তাদের জন্য বলছি রবীন্দ্রনাথ পড়তে হবেনা, তাদের অবশ্য পাঠ্য যে বইটি সেটি হল, লেখক আবু সাইদ আইউব এর পান্থজনের সখা।
Yesterday at 2:47pm · LikeUnlike · 1 personLoading... ·
o
প্রণব আচার্য্য Pranab Acharjee
প্রলয়, যে অংশটি আপনি কোট করলেন, তা একটি বিশেষ গোষ্ঠীকে উদ্দেশ্য করে বলা। জেনারালাইজড কইরেন না বস। যারা রবীন্দ্রনাথকে ইসলামের সাথে সাঙ্ঘর্ষিক হিসাবে চিহ্নিত করেন- তাদেরকে ইঙগিত করেই কমেন্টটি করেছিলাম। এরাই পাকিস্তান আমলে রবীন্দ্র সঙগীত ব্যান... করার পক্ষে ছিলেন।

আর রবীন্দ্রনাথের সমালোচনা করা যাবে না- এ রকম ব্যক্তিপুজারী কখনোই নই।See More
Yesterday at 2:51pm · LikeUnlike ·
o
Kulada Roy
রবীন্দ্রনাথ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরোধীতা করেছিলেন--এ ধরনের কথা আমিও শুনেছি। যেমন শুনেছি--তিনি লালনের গান চুরি করেছিলেন। নজরুলের নোবেল পদক চুরি করেছিলেন ইত্যাদি।
কিন্তু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তাকে কেন ডিলিট উপাধী দিয়েছিল? কেন তাকে সংবর...্ধনা দিয়েছিল? তিনি যে ঢাকা বিশ্বাবদ্যালয়ের বিরোধিতা করেছিলেন--এরকম কোন প্রমাণ কি কেউ দিতে পারেন? পেলে পড়ে দেখা যেত।See More
Yesterday at 2:55pm · LikeUnlike · 1 personLoading... ·
o
প্রণব আচার্য্য Pranab Acharjee আর ঢাবির বিরোধীতার ব্যাপরে কোন অথেন্টিক রেফারেন্স আমার কাছে নাই, ফলে এ ব্যাপরে (বিরোধীতা করেছিলেন কি করেন নাই) তেমন কিছু বলতে পারছিনা।

তবে এ বিষয় নিয়ে সামুতে ছাগুচীফ ত্রিভুজের একটা গেনগর্ভ একটা পোস্ট আছে। ;);)
Yesterday at 2:56pm · LikeUnlike ·
o
Kazi Mamun
প্রলয়, "কিন্তু ঘটনা "যদি" সত্য হয়ে থাকে, তাহলে কোন যক্তি বা অজুহাতেই রবীঠাকুর আমার কাছে আর মহাপুরুষ থাকবে না।"
এই একটা 'যদি'র জন্যই সূর্য পৃথিবীর চারদিকে ঘুরে না, বরং পৃথিবীকেই কান ধরে ঘুরায়।এই একটা যদি'র জন্যই জিয়োর্দানো প্রাণ দেয়!
রবীন্দ্র...নাথ মুসলমান ছিলেন না এ কারণে আমাদের জাতীয় সঙ্গীত বদলানোর জন্য পরামর্শ দেন অনেকে। নিন্দুকেরা নানা ভাবে নানা কথা ছড়ায়। তথ্য এবং প্রমাণ ছাড়া কাউকে শ্রদ্ধা করতে না পারি, অশ্রদ্ধা করা কি ঠিক হবে?
কুলাদা দাদার এ সিরিজটা আমাদের অনেক কিছু জানতে সহায়ক এই কামনা রইলো!See More
Yesterday at 2:56pm · LikeUnlike · 1 personLoading... ·
o
Sounak Datta অনেক কিছু জানবো এবং জানলাম ।পরের পর্ব গুলোর অপেক্ষায় থাকলাম ।
Yesterday at 2:56pm via Facebook Mobile · LikeUnlike ·
o
Ashis Majumder ঘাদানিক করলেই তিনি মুক্তচিন্তার মানুষ হবেই এই গ্যারান্টি কে দিয়েছে। অনেক তুখোর বামপন্থীর মৌলবাদীতে রুপান্তর বাংলাদেশেই ঘটেছে।
Yesterday at 2:58pm · LikeUnlike ·
o
Kazi Mamun একই ভাবে অনেক তুখোর মুক্তিযোদ্ধাও ধর্মের ব্যাপারে অন্ধত্ব দিয়ে রবীন্দ্রনাথ কে বিচার করেন। মুক্তিযোদ্ধা মানেই তিনি সবসময় মুক্তচিন্তার কথা বলবেন এটা ঠিক নয়!
Yesterday at 3:04pm · LikeUnlike · 1 personLoading... ·
o
Rasel Pervez
কল্পধারণার ভেতরে থেকে একটা বিষয়ে স্থির সিদ্ধান্ত প্রকাশ করাটা বালখিল্যতা এবং সেটা নিয়ে আবেগাক্রান্ত হয়ে ওঠাও আরেক ধরণের বালখিল্যতা।
সাদ কামালী, সলিমুল্লাহ সাহেব কিংবা তার অগ্রজ হিসেবে আবুল মনসুর আহমেদ( যাকে এখানে স্মরণ করা হয় নি কিন্তু যিনি... মূলত এই আবেদনের সপক্ষে সর্বপ্রথম লিখেছেন) কিংবা সৈয়দ সাজ্জাদ হোসায়েন কিংবা গোলাম মোস্তফা কিংবা আরও যাদের এখানে স্মরণ করা হয়েছে তাদের রাজনৈতিক অবস্থান কিংবা পূর্বা বাংলার অধিবাসী হিসেবে পৃথক একটি সাংস্কৃতি ঐতিহ্য ধারণ করবার তাগিদ( সেটা ইসলামী মূল্যবোধ ও একটু ঐসলামিক শব্দপ্রীতি এবং আরও একটু এগিয়ে কাফির বিদ্বেষ পর্যন্ত বিস্তৃত হতে পারে) এবং পশ্চিম বাংলার অধিবাসী হিসেবে চিহ্নিত করতে চাওয়া একজন রবীন্দ্র অনুরাগীর অবস্থানের পার্থক্য কোথায়? ভক্তিতে? বক্তব্য? মুক্তচিন্তার অনুসরণ ও অনুকরণের নিশ্চয়তা দেওয়া রবিন্দ্রসঙ্গীতের মূর্ছনায়? রবীন্দ্রনাথকে উপলব্ধি করতে হবে কবিগুরুর রচনায়, টিএমআত্মজীবনিতে , বিভিন্ন বিশ্লেষকের লেখা জীবনিতে এবং শান্তি নিকেতনে- এক নিঃশ্বাসে এতগুলো কথা বলে ফেললে কি তিনি মহান গুরুভক্ত চিহ্নিত হতে পারেন?

রবীন্দ্রনাথের ধর্ম ভাবনা বদলেছে, কিন্তু সে পরিবর্তনের সাথে পরিবর্তিত হয়েছে তার প্রচারিত বিশ্বাস। যে ধর্মবিশ্বাসের অনুপ্রেরণায় শান্তিনিকেতনের সৃষ্টি সে ধর্মবিশ্বাস কি গুরুদেব আদৌ ত্যাগ করেছিলেন?See More
Yesterday at 4:04pm · LikeUnlike ·
o
Sandeep Shukla
aami ei lekha gula pore aschorjo hoye jacchi. Robindranath Dhaka University er birodhita korechilen emon kokhono suni nai.. kintu tar cheye boro kotha, eta niye rabindranath bangladesh birodhi chilen ki kore proman hoi,,, jokhon robindranat...h bangladesh kei sonar bangla bole eto gaan likechen. There may be other reasons for his opposition (if there was any-- which I do not believe). At that time, there was no separate Bangladesh. Bangladesh was the entire bangla. So Kolkatay university hoya aar dhakay hoya te Bangladesh birodhita ki kore proman hoi. Rabindranath er jibito kaal e bangla okhondo chilo.
Arek jon bolechen bongo bhongo birodhita kore tini odurodorshita korechen. Ei bypar gulo r somokalin context niye bhebe dekhben. Bongo bhongo was an idea of Lord Curzon not for benefiting any one from Bangla, but just to create separatism, and also to make Bengal province less important (because most swedeshi leaders were from Bengal, and at that time Gandhi was not even in the scene of Indian freedom movement-- so Curzon shaheb bhablen bangalider modhye separatism jagiye dile, swadeshi bondho kore tara nijeder modhye mara mari kore morbe). Rabindranath mara jabar por thik tai holo. Eto manush mara gelo okarone, dhormer namey okaran rokto paat kore. Ki laav hole. Historic situations have now given rise to separate Bangladesh, and it is the pride of the people of Bangladesh that they have their own country and destiny. But historical context must be considered before making comments about Rabindranath. Has there been any intellectual equivalent to Rabindranath in Bengali language ever? Will there ever be? Has there been any one like him in the entire south Asia? Think about it. I do not know of any one in the world, who has written and given music to close to 3000 songs, written more than 10000 poems which still resonate with the people of Bengal even after 100 years, more than 10 novels, more than 15 drams, 100+ short stories, and 1000+ essays (essays which actually often went against Gandhi and many other powerful leaders and who took notice and often changed their views). Along with it, he also tried to bring out the various cultural gems of Bengal (Lalon's songs for example) and of India (Kabir's dohas etc). Think of his paintings (1000+ paintings) expressing deepest emotions in vivid and passionate colors without any training in painting. Then think of his educational outlook (Shantiniketan today has lost track of that and has been reduced to nothing ,, but his educational ideas were not trivial). His social outlook (his work for Shantals in Birbhum, his work for rural cooperative banking in Shilaidaha), and all that. Do you know any one with this much done within 80 years of life span? Bengali language in its present form is also mostly his creation, expressions of bengali thoughts and emotions, and much more. Can you imagine one single person suffering deaths of so many close ones (out of 6 kids, 4 died in his life time), doing all this, and still giving a treasure that is available only in your mother tongue? Your mother tongue has been blessed with the birth of Rabindranath and cherish it.See More
Yesterday at 5:07pm · LikeUnlike · 1 personLoading... ·
o
Mohsin Dhali
‎" ..রবীন্দ্রনাথ রবীন্দ্রনাথ ছিলেন "। বিস্তৃত ভাবে জানা প্রয়োজন। এই বাক্যটি থেকে আমার ক্ষুদ্র জ্ঞানে তিনটি বিষয় উদয় হয়: ১) তিনি কি একক ? ২)তার তুলনা কি তিনি নিজেই ? ৩) তিনি কোন Subfield নয়। একটি স্বয়ংসর্ম্পূণ Complete field ?
এই বিষয়টি আমি ...বিশ্বাস করি যে, রবীন্দ্রনাথ বিশ্বে এক বিস্ময়কর প্রতিভা। গুরুদেব। বাঙ্গালী ঘরানার এক শ্রেষ্ঠ সন্তান।See More
Yesterday at 5:27pm · LikeUnlike · 2 peopleLoading... ·
o
হৃৎকমল Hrithkomol
বাকি পর্বগুলো পড়া যাক আগে। তারপর চিন্তা করা যাবে। রবীন্দ্রনাথ নিয়ে আমার কৌতুহল অনেক। বাঙালীর প্রধানতম কবি, সাহিত্যিক ও সংগীতজ্ঞ। লালন সহ অন্যান্য বাউলদের দ্বারা তিনি প্রভাবিত ছিলেন বা অনেক গানের সুর নিয়েছেন আবার অনেক গানের বাণী আংশিক বা পুর...োটাই নিয়েছেন। মরার আগে এ ঋণ তিনি স্বীকারও করে গেছেন। এসব গান 'বাউলাঙ্গ'র গান হিসেবে পরিচিত। বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত যেটা সেটাও তেমনি একটা গান। মূল গানটি ছিল গগন হরকরার।
তবে একটা কথা রবীন্দ্রনাথ-এর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরোধীতা করা আর 'লালনের গান চুরি' 'নজরুলের নোবেল পদক চুরি'র অভি্যোগকে একত্রিত করে উপ্সথাপন মনে হয় উদ্দেশ্য প্রণদিত। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনার বিরোধীতা করেছিলেন এবং ঢাকা স্থলে একে মক্কা বিশ্ববিদ্যালয় বলে বিদ্রুপ করেছেন। কিন্তু কথা হচ্ছে মানুষ রবীন্দ্রনাথকে কি আমাদের শ্রদ্ধা পাওয়ার জন্য দেবতা হতেই হবে নাকি? তার কি মানবিক সীমাবদ্ধতা থাকতে নেই? আর পাঁচটা মানুষের মতই মানুষ ছিলেন তিনি এবং প্রচুর সীমাবদ্ধতাও ছিল তাঁর। তাতে আমার অন্তত তার প্রতি শ্রদ্ধার কমতি হয় না। রবীন্দ্রনাথ তাঁর বিপুল সৃজনশীলতা (সৃটির কলেবর বিশ্বে তুলনাহীন) ও তাঁর মানবিক সীমাবদ্ধতা এই দৈতাদ্বৈতের মধ্যেই রবীন্দ্রনাথ বাঙালীর শ্রেষ্ঠতম উত্তরাধিকার। তাঁর ওপর দেবত্ব আরপ বা তাঁকে বিপ্লবী বানানোর প্রয়োজন আছে মনে হয় না। সুনির্দিষ্ট রাজনৈতিক স্বার্থে যারা এরকমের অতিভক্তি দেখায় তারাই আবার সময় এলে রবীন্দ্রনাথ ঈশ্বরচন্দ্রের মত ক্ষণজন্মাদের গলাধাক্কা দিয়ে পেছনে পাঠিয়ে তাদের পছন্দের জাতীয়তাবাদী রাজনৈতিক নেতাকে 'সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালী' অভিধায় ভূষিত করে!
এখানে শুধু তাঁর একটি সীমাবদ্ধতার কথা উল্লেখ করে শেষ করছি। এই লেখা যেহেতু আংশিক তাই বিষয়টা ধরণা করা মুষ্কিল। তবুও যে ভাবে দ্বারকনাথের সঙ্গে তুলনা করে রবিঠাকুর কে উপস্থাপন করা হয়েছে সেটুকু দেখে বলা যায় যে, রবিঠাকুরদা দ্বারকনাথ-এর মত ওতটা রেডিক্যাল ছিলেন না।See More
21 hours ago · LikeUnlike · 2 peopleLoading... ·
o
Tarok Kumar Ghosh যেহেতু রবীন্দ্রনাথকে মুসলমানদের খাওয়ানোর উপযুক্ত করতে হবে তাই রবীন্দ্রনাথ হিন্দু নয় তিনি গরু খেতেন তিনি মুসলমান বউ রাখতেন, তিনি হিন্দুদের বিগ্রহ ভাংচুর করতেন । এসব প্রচার করতে হবে। হায়রে রবীন্দ্রনাথ এত কিছু করার পর বাংলার মুসলমান সমাজ তোমারে গ্রহণ করতে পারল না।
21 hours ago · LikeUnlike · 1 personLoading... ·
o
হৃৎকমল Hrithkomol
Tarok Kumar Ghosh@ the hateful creature, here you are again! Bravo!! প্রফাইলের Political Views ভুল বানানে Bangladesh Awamelig লেখা কি এখন আছে নাকি গতকাল মিতুল দত্তের থ্রেডে যে League বানান বলেছিলাম সেটা করা হয়েছে? তারকবাবু বিজেপি একটা ব্রা...ঞ্চ বাংলাদেশে খুলে ফেললেই হয় না? তার পর শুধু শ্লোগান দেওয়া 'মুসলমানের দুই স্থান/ পাকিস্তান নয়ত গোরস্থান'!! রবিঠাকুর মুসলনের দেশের কুলীন কায়েত তারক ঘোষকে চিনতেন আলবৎ! নইলে 'মাথায় ছোটো বহরে বড়, বাঙালী সন্তান' লিখেছিলেন কাকে উদ্দেশ করে?
ওহহো! আসল কথাই বলা হয়নি। রবিঠাকুরের পূর্ব পুরুষগণের মুসলমান-দোষ ও গোমাংস (ঘ্রানে অর্ধ)ভোজনজনিত অপরাধের অভিযোগে বিশুদ্ধ ব্রাহ্মণত্ব থেকে চ্যুত হয়ে নিচু মর্যাদার 'পীরেলি ব্রাহ্মণ' হয়েছিলেন। ঠাকুর পরিবারের গো-মাংস দোষের কথাটা স্মরণ করিয়ে দেওয়ার জন্য আপনি ধন্যবাদার্হ।
এখন কুলদাবাবু আপনার বাণী যথার্থ অনুধাবন করলে এর পরের লেখা পর্বগুলোতে রবিঠাকুরের উপর যথেষ্ট 'হিন্দুত্ব' আরপ করে উপস্থাপন করবেন আশা করি। কিন্তু রবিঠাকুরের যে সব ফটো আছে তার একটাতেও তাঁর 'হিন্দুত্ব'র পোষাক নেই। ওগুল ডিজিটালি আমরা ম্যানিপুলেট করে ধুতি-পাঞ্জাবি করে দেব!See More
20 hours ago · LikeUnlike · 1 personLoading... ·
o
Kulada Roy আলোচনায় জমে উঠেছে। প্রশ্নটি কিন্তু থেকে যাচ্ছে যে, ''তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনার বিরোধীতা করেছিলেন এবং ঢাকা স্থলে একে মক্কা বিশ্ববিদ্যালয় বলে বিদ্রুপ করেছেন।'' এই ধরনের বক্তব্য কোথায় দিয়েছিলেন? সে ধরনের কি কোনো প্রমাণ হাজির করা যাবে হৃৎকলম?
18 hours ago · LikeUnlike ·
o
Debabrata Roy অপু ‎1913-1899=14 years. সবার উপরে 'ধর্ম' সত্য, তাহার উপরে নাই...
18 hours ago · LikeUnlike ·
o
Kulada Roy ‎'1913-1899=14 years. সবার উপরে 'ধর্ম' সত্য, তাহার উপরে নাই...' এই বাক্যটির মরমীয়া ধরনের হয়ে গেছে। শানে নজুল বলেন অপু।
17 hours ago · LikeUnlike ·
o
Kazi Mamun
‎@Sandeep Shukla- "Arek jon(এমন উল্লেখ ভালো লাগে নি! এটা ব্লগ নয় এটা বন্ধুদের আড্ডা) bolechen bongo bhongo birodhita kore tini odurodorshita korechen...."
খুব কষ্ট হুয় এখন রোমান হরফে বাংলা পড়তে, বুঝতে গিয়ে তাই হয় একটু সমস্যা। আমি অল্প কথায় ব...লি- বঙ্গভঙ্গ(১৯০৫)- পার্বত্য ত্রিপুরা রাজ্য, চট্টগ্রাম, ঢাকা ও রাজশাহী (দার্জিলিং বাদে) বিভাগ এবং মালদা জেলা, আসাম প্রদেশের সঙ্গে একীভূত হয়ে এই নতুন প্রদেশ গঠন করবে। এর ফলে বঙ্গ শুধু তার বৃহৎ পূর্বাঞ্চলই হারাবে না, তাকে হিন্দীভাষী পাঁচটি রাজ্যও মধ্যপ্রদেশকে ছেড়ে দিতে হবে। অন্যদিকে পশ্চিমে সম্বলপুর এবং মধ্যপ্রদেশের পাঁচটি ওড়িয়া-ভাষী রাজ্যের সামান্য অংশ বঙ্গকে দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়। ফলে বঙ্গের আয়তন দাঁড়ায় ১,৪১,৫৮০ বর্গ মাইল। বর্তমান বাংলাদেশের আয়তন মাত্র ৫৬হাজার বর্গমাইল। এরপর বাস্তবায়নের সময় যে পূর্ববাঙলা ও আসাম নামের প্রদেশ গঠন করা হয় তারও আয়তন এক লক্ষ বর্গমাইলেই বেশি ছিল। সেই বাঙলা টিকে গেলে ভারত বিভাগের সময় ঐ ভাষা ও সংস্কৃতিই গুরত্ব পেত হয়তো কোলকাতাও হতো অন্তর্ভুক্ত। কি হতে পারতো তাতে না যাই, যা হয়েছে তা হলো-
রবীন্দ্রনাথ সহ আরও যারা তখন বঙ্গভঙ্গের বিরোধীতা (১৯০৬) করেছিলেন- এর প্রধান কারণ ছিল- কোলকাতাকে বাদ দিয়ে ঢাকাকে রাজধানী করে ধর্মকে গুরত্ব না দিয়ে ভাষা ও সংস্কৃতি ভিত্তিক একটা প্রদেশ করা। এ বিরোধীতাকে পুঁজি করেই বঙ্গভঙ্গ রদ(১৯১১) হয়ে যায়। এবং এই একই কারণে প্রভাবিত হয় পরবর্তী ভারত বিভাগের সিদ্ধান্তগুলো । কোলকাতা ছেড়ে রাজধানী চলে যায় দিল্লীতে দুই বাংলা ভাগ করে পূর্ব বাংলাকে চাপিয়ে দেয়া হয় পাকিস্থান নামক এক অথর্ব রাষ্ট্রের কাধে, ধর্মীয় বিরোধ এ অঞ্ছলের মানুষের মনে জোরপূর্বক ঢুকিয়ে দেয়া হয়। এই ধর্মকে পুজি করেই চলে পুর্ব বাংলায় অত্যাচার-অবিচার। ব্রিটিশ সহ আরো আরো কূপমন্ডুক দের কারণেই বাড়তি ৩০ লক্ষ প্রাণ দিয়ে বাংলাদেশ নামে দেশটির স্বাধীনতা অর্জন করতে হয়। দ্বিখন্ডীত পশ্চিম বাংলা, পূর্ব বাংলা এই বিষয়গুলো জানার জন্য খুব বেশি বছরের ইতিহাস ঘাটতে হয় না, আর খুব বেশি মাথাও খাটাতে হয় না। রবীন্দ্রনাথ কে মানুষ রবীন্দ্রনাথ হিসেবে দেখতেই আমি আগ্রহী হিন্দুও নন আবার দেবতাও নন।See More
17 hours ago · LikeUnlike ·
o
Ranjan Kumar Nandy ‎"রবীন্দ্রনাথ হিন্দু ছিলেন না", "নজরুল মুসলমান ছিলেন না" এইসব প্রচার করা স্রেফ হীনমন্যতার লক্ষণ । "বাহ্ম" কোন নতুন ধর্মমত নয় - এটা হিন্দু ধর্মের-ই সংস্কারবাদী শাখা । নইলে স্বামী "বাহ্ম", স্ত্রী হিন্দু - এই ব্যাপারটা এতো সহজ হয়ে উঠতো না । রবীন্দ্রনাথ কে গ্রহণযোগ্য করে তুলতে যদি তার সাহিত্যিক দক্ষতার বদলে তিনি হিন্দু না এই মত টিকেই প্রতিষ্ঠা করার প্রয়োজন হয় - তা তার প্রতি অবমাননা ছাড়া আর কিছুই নয় । এই দীনতা যেন আমাদের গ্রাস না করে - এই প্রত্যাশা রইল ।
17 hours ago · LikeUnlike ·
o
Shahed Kayes শাহেদ কায়েস রবীন্দ্রনাথকে বোঝার জন্য বিতর্ক না, প্রয়োজন পূর্ণাঙ্গ রবীন্দ্র পাঠ... খন্ডিত পাঠ শুধু বিভ্রান্তি তৈরী করে...
17 hours ago · LikeUnlike ·
o
Kazi Mamun ‎@Ranjan Kumar Nandy- আপনার বিচার অনুসারে ইসলাম ও ক্রিসচিনিয়াটি ও একই ধর্ম!
17 hours ago · LikeUnlike ·
o
Anindya Chaki
The Tagore Mania: Identity Crisis and Anti-Bangladesh Syndrome /
Taj Hashmi/ Simon Fraser University, Canada / Published on May 11, 2006
Do these people really deserve any attention ? They have definite pol agenda to serve. Let them.They ...have their own identity crisis which they find too critical to handle.See More
16 hours ago · LikeUnlike · 1 personLoading... ·
o
হৃৎকমল Hrithkomol
Kulada Roy@ I don't consider FACEBOOK is a forum for academic discussions....just a bit serious chit-chat. সুতরাং এখানে এই সব তথ্য-প্রমাণ হাজির করা করির বাসনা রাখছি না। এখন পর্যন্ত অন্তত। তবে এধরণের কোন মন্তব্য শুধু রেফারেন্সই নয়, ক্রস-রেফা...রেন্স চেক না করে করি না, এবং সেটা আমার নিজের আত্ম সন্তুষ্টির জন্যই। তার মানে কি এও দাঁড়াল না যে বিষয়ে তথ্য 'প্রমাণ হাজির '-এর তাগিদ দিচ্ছেন তা একাধিক সুত্রেই পাওয়া সম্ভভ। সাহিত্যের বাইরে খোঁজ করলেই পেয়ে যাবেন। দুই বাংলার লেখক/গবেষকের লেখায় এটা পাওয়া যায়। এটা বিরল তথ্য নয়। একটা সিরিয়াস-গন্ধী বিষয়ে লিখছেন সে ক্ষেত্রে দু'পিঠের তথ্যে নজর রাখা আপনার নৈতিক দায়িত্ব। যদি না কেবল বিশেষ উদ্দেশ্য না থাকে এই লেখার। যেটা মনে হয় লেখার শুরুতেই উপসংহার দিয়ে সাজ্জাদ হোসাইন, ফররুখ আহম্মদথেকে ফরহাদ মাযহার, সলিমুল্লাহ খাঁন প্রমুখ ভিন্নমতাবলম্বিদের এক হাত নিয়ে শুরু করেছেন। তার মানে ১। আপনি লেখার আগেই মতস্থির করে 'প্রিকঞ্চিভড' আইডিয়া নিয়ে লিখতে বসেছেন। ২। ভিন্নমতাবলম্বিদের মত সঠিক না বেঠিক সেটা যাচাই-বাছাঁই করে খন্ডন করতে আপনি অপারগ অথবা অনিচ্ছুক।শুধু পছন্দের লেখকদের কেতাব বা লেখা পড়ে আর যাই হোক নির্মোহ কোন লেখা বা মুল্যায়ন হয় না।
শেষে বলব, কারুর যদি ব্যক্তিগত কোন বিশ্বাস বা পছন্দ থাকে leave your personal believe or convictions behind when entering the library or the study.See More
11 hours ago · LikeUnlike ·
o
হৃৎকমল Hrithkomol
Ranjan Kumar Nandy@ তা বেড়ে বলেছেন মশাই! নতুন কিছুত না। বৌদ্ধ ধর্ম শিখ ধর্ম সবইত 'হিন্দু' ধর্মের শাখা না? সর্দার বল্লভ ভাই প্যাটেলের চেলা বোঝা গেল। প্যাটেলের পণ্ডিত ভারতের সনবিধানে অফিসিয়ালি বৌদ্ধ, শিখ এগুলো 'হিন্দু'র শাখা-প্রশাখা করেছিলেন।... সেখানে অবশ্য ব্রেহ্মদের কথা উল্লেখ ছিল না। তা আপনার কথাই সই। এবার আমার স্পস্ট প্রশ্ন জবাব দিয়ে কৃতার্থ করবেনঃ
১। ১৯৮৪ সনে এই শাখা যখন গাছের গোড়া ঝেড়ে দিল, মানে ইন্দিরা গান্ধীকে হড়কে দিল, তখন সারা ভারতে প্রতিশোধ হিসেবে অগণিত শিখকে (বৃদ্ধ, নারী ও শশু সহ) যখন নিধন করা হয় তখন এই শাখা তত্ত্ব কোথায় ছিল? আর 'হিন্দু' কর্তৃক বৌদ্ধ-নিধনযজ্ঞের ইতিহাসই বা কেন সৃষ্টি হয়েছিল?
২। আপনার কথা মত পুজা-আচ্চা, যজ্ঞ বিরোধী, একেশ্বরবাদী ব্রেহ্মরা যদি 'হিন্দু'র শাখাই হবে তাহলে ব্রেহ্মদের উপর এত নির্যাতন হয়েছিল কেন সে জামানায়? ব্রেহ্ম বেদব্রত বিশ্বাসের পরিবারের এবং তার 'জর্জ' মানকরণের উদাহরণই যথেষ্ট। বেদব্রত বিশ্বাসের জন্মের পর পর তাঁর মা যখন প্রচন্ড অসুস্থ 'স্বধর্মী' বর্ণহিন্দুদের দ্বারা একঘরে ও অত্যাচারিত এই পরিবারের শিশুটির কিছুদিনের জন্য আশ্রয় জুটেছিল খ্রিষ্টান মিশনে। সেখানেই তাঁর জর্জ নামকরণ হয়। এখন অবশ্য আপনার মত 'হিন্দু' আতেলরা তাঁর জর্জ নামকরণের নতুন গল্প ফেঁদে প্রচার করেন। সেটা হল ১৯১১ সনে যখন দেবব্রত বিশ্বাসের জন্ম সে বছর ভারতেশ্বর পঞ্চম জর্জ ভারত আসেন (এবং রবিবাবু 'জন গণ মন অধিনায়ক' লেখেন) সে উপলক্ষে তাঁর 'জর্জ' নামকরণ করা হয়! এ কথা প্রখ্যাত অভিনেতা সৌমিত্র চট্টপাধ্যায়ও উল্লেখ করেছেন। একটু ব্যাখ্যা করবেন এমনটা কেন হয়েছিল?
৩। 'হিন্দু' ধর্ম বলতে আপনি কী বোঝেন বলবেন? আমি যদি বলি 'হিন্দু' ধর্ম বলে কোন কালেই কিছু ছিল না এবং এটা বহিরাগত শাসক মুসলমানদের আবিষ্কার বা তাদের invented অভিধা যা অসম্মানকরও বটে, কিরূপে খন্ডন করবেন? সে দিক দিয়ে দেখলে নিজেকে 'হিন্দু' পরিচয় দেওয়া আর আমেরিকার কালো মানূষদের নিজেদের 'নিগার' বলে পরিচয় দেওয়া সমার্থক হয় নাকি? আর এ গুলোকে এক ধর্ম করে মানুষকে তার জন্য এত মাশুল দিতে হল কেন?
বাবুর উত্তরের অপেক্ষায় রইলাম।See More
10 hours ago · LikeUnlike ·
o
Debabrata Roy অপু
কুলদা দাদাঃ "1913-1899=14 years. সবার উপরে 'ধর্ম' সত্য, তাহার উপরে নাই"... অনেক অবার্চীনের মুখে শুনেছি, রবি ঠাকুর নাকি ইংরেজদের তোষামোদি করে নোবেল পেয়েছেন, ওটা নাকি নজরুলের প্রাপ্য ছিল, নজরুলেরটি কেড়ে নিয়েই রবীন্দ্রনাথকে দেয়া হয়েছে, ইত্যাদি...। তারা এতটাই গাড়ল যে জানেনা যে ১৯১৩ সালে নজরুল নিতান্তই ১৪ বছরের দুখী মিয়া ছিলেন।
আমি ৩বছর বাংলাদেশের একটি বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত এবং আবাসিক ছিলাম। কর্মকর্তাদের ক্লাবটির সংস্কৃতি সম্পাদক হিসেবে কাজ করেছি। একবার রবীন্দ্র-নজরুল জয়ন্তি পালনার্থে বাচ্চাদের কাছ থেকে এই দুজনের ওপর লেখা আহবান করেছিলাম (পুরষ্কারের ঘোষণাসহ)। রবি ঠাকুরের ওপর একটিও লেখা আসে নি। একজন লিখেছিল, প্রকৃত বিশ্বকবি আসলে নজরুল। রবীন্দ্রনাথ সাম্প্রদায়িক কবি। বলা বাহুল্য, ওটি ছিল তার বাবার লেখা।
এও শুনেছি, নজরুলকে অসুস্থ করার চক্রান্ত নাকি ঠাকুর মশাইয়ের। কবিগুরু মারা যান ১৯৪১ সালে, নজরুল কি তখন অসুস্থ ছিলেন?
এই অপপ্রচার কিন্তু নজরুলের প্রতি ভালোবাসা থেকে নয়, তার ধর্মের প্রতি ভালোবাসা থেকে বা অন্য ধর্মের প্রতি বিদ্বেষ থেকে।
আমরা অনেক বড়ো বড়ো কথা বলি, কিন্তু বেশীর ভাগ মানুষই দিনের শেষে হিন্দু বা মুসলমান।See More
8 hours ago · LikeUnlike · 1 personLoading... ·
o
Kazi Mamun সম্ভবতঃ আপনারা দু'জনই আমার চেয়ে বয়সে বড় হবেন, সেক্ষেত্রে আপনাদের কাছ থেকেই আমার শিষ্টাচার শেখার কথা!!! এখনে ভালো আলোচনা হচ্ছিল আপনারা কেন অযথাই পরিবেশ নষ্ট করছেন? আমি Hrithkomol এবং Tarok Kumar Ghosh দুজনকেই বলছি!
7 hours ago · LikeUnlike · 1 personLoading... ·
o
হৃৎকমল Hrithkomol
Kazi Mamun@ এই সহজিয়া জ্ঞান বা মুলায়েম দেওয়া বন্ধ করুন। সস্তা উপদেশ খুবই দিতে জানে বাঙালী কিন্তু আমি ওটা গিলি না।
এখানে কেউ তাকে অশ্লীল গালি দেয়নি। সে গলি দেওয়ার জন্য সব যায়গায় ঘুরগুর করে বেড়াচ্ছে সে প্রমাণ আমি নিচে দিচ্ছি। ক'দিন আগে এই বাং...লাদেশি ওপেনলি BJP সাপোর্টার তারক ঘোষ Mitul Dutta -র প্রোফালে সে কেন হিন্দু হয়ে মুসলমানদের ঈদ মোবারাক জানিয়েছে এ দিয়ে শুরু করে শুধু সব মসলমান তার চোখে এক, বাংলাদেশের সব মুসলমান সাম্প্রদায়িক এবং তারা নাকি কখনই দূর্গা পুজায় শুভেচ্ছা জানায় না। এর পর গালাগালি থেকে শুরু করে গুজরাটের দাঙ্গার সমর্থন করে বাণী দিয়েছিলেন। মিতুল দত্তের এই লিঙ্কে (http://www.facebook.com/profile.php?id=1316092002&v=wall&story_fbid=151578001529728) গিয়ে দেখতে পারেন কিরকম জঘন্য সাম্প্রদায়িক সে। কুলদা'র এই থ্রেডে সে যে মন্তব্য করেছে রবীন্দ্রনাথের গরু খাইয়ে মুসলমান্দের কাছে গ্রহণযোগ্য করতে হবে বিদ্রুপ করে তাও যথেষ্ট উষ্কানিমূলক এবং সে কারণেই আমি তার যথাযথ জবাব দিয়েছি। কোন খিস্তি প্রয়োগ আমি করিনি। আমি শুধু দেখছি যার নোট -থ্রেড তার প্রতিক্রিয়া কি সেটা। নাহলে তারকের মত জন্তু কি করে সাইজ করতে হয় তা আমার ঢের জানা আছে।
এখন নিচের লিঙ্কে গিয়ে দেখেন আজকে কাবেরী গায়েন-এর স্ট্যাটাসে কী মন্তব্য করেছে এবং স্বয়ং কাবেরী সহ কয়েকজন তাকে হুশিয়ার করেছে। সেখানে আমার কোন সংশ্রবই নেই।
http://www.facebook.com/profile.php?id=573041498&v=wall&story_fbid=154500694579575#!/profile.php?id=573041498&v=wall&story_fbid=154500694579575&ref=notif¬if_t=likeSee More
7 hours ago · LikeUnlike ·
o
Kulada Roy কাজী মামুন ধন্যবাদ। এখানে শিষ্টাচার অনুসরণ করা দরকার।
এটা একটি ধারাবাহিক লেখা হবে। কোনো কোনো প্রশ্ন বা প্রসঙ্গ গুরুত্ব বিবেচনা করে আলাদা আলাদা পর্বে দেওয়া হবে।
এই পোস্টের মধ্য দিয়ে অনেক ভ্রান্তি নিরসন করার চেষ্টা করা যেতে পারে।
6 hours ago · LikeUnlike ·
o
Dwaitadwaita Biswas দ্বৈতাদ্বৈত বিশ্বাস
ei tarok kaberidi-r oi khaneo vejal lagaiche ulta palta likhya, bangladesh naki india puro dabi chaira jay nai boila. abar ekhaneo ekota valo alochonar modhye gondogol pakailo! ami shobairey request kortechi plz shanto hon.
tarok-ere ami chi...ni otar mathay gondogol. o shob shomyei ektu acentric.See More
6 hours ago · LikeUnlike ·
o
Kulada Roy শিষ্টাচার বহির্ভূত মন্তব্য ডিলিট করে দেওয়া হল। আশা করি আলোচনার শান্ত পরিবেশ থাকবে।
6 hours ago · LikeUnlike · 2 peopleLoading... ·
o
Ranjan Kumar Nandy রাবিন্দ্রীক আলোচনায় গালাগালি একেবারেই অ-রাবিন্দ্রীক শোনায় --
6 hours ago · LikeUnlike · 1 personLoading... ·
o
Sunjida Shahriah robindronath k bad dile bangla vasha-r koto tuktu bad dite hobe??.......kintu sei robi kobi ki r janten je 71 a bangladesh hobe....ter por taake bangali vs bangladeshi -r challenge face korte hobe!! hay Seleucus !
5 hours ago · LikeUnlike ·
o
Ashraf Siddiqui carry on man ...........waiting for the next post .......
5 hours ago · LikeUnlike ·
o
Ranjan Kumar Nandy
রবীন্দ্রনাথ যখন কবিশ্রেষ্ঠ তখন ব্রাহ্ম, যখন "ইংরেজ-তোষক" এবং "প্রজা-নিপীড়ক" জমিদার তখন হিন্দু - এরুপ মানসিকতা নতুন নয় । নজরুল জীবিত অবস্থায় "কাফের" এবং মারা যাবার পর "মুসলিম জাগরনের কবি" - এটাও সত্য । যেহেতু রবীন্দ্রনাথ মুসলিম বাংলার জাতীয় ...সংগীত এর রচয়িতা সেহেতু তাকে "হিন্দু না" বলে প্রমাণ করতেই হবে । নিচের বাক্যটি পড়তে কেমন শোনায় " বাবু কুলদা রায় ইসলাম ধর্ম গ্রহন করিয়া মোহাম্মদ হ্রতকমল নাম ধারন করিলেন ও তাহার বাড়ীতে ধুমধামের সহিত হিন্দু পুজা অনুষ্ঠান হইতে দিয়া একাকী পুকুর পাড়ে বসিয়া ঝিমাইতে লাগিলেন" - এটা বিশ্বাসযোগ্য শোনায় কী?See More
3 hours ago · LikeUnlike ·
o
Ranjan Kumar Nandy ব্রাহ্ম আন্দোলন হিন্দু ধর্মের অনেক আবর্জনা ( সতিদাহ ইত্যাদী) পরিস্কার করতে সহায়ক হয়েছিল । কেশব সেন যখন ব্রাহ্ম সমাজের প্রধান ছিলেন তখন বিভিন্ন বিষয়ে দ্বিমত থেকে ব্রাহ্ম সমাজে ভাঙ্গন ধরে । কেশব সেন নিজে শ্রীরামকৃষ্ণের অনুরাগী ভক্ত ছিলেন । শ্রীরামকৃষ্ণের প্রধান অনুসারী বিবেকানন্দ-ও ব্রাহ্ম সমাজ থেকেই এসেছিলেন । বিবেকানন্দের সময় থেকে ব্রাহ্ম আন্দোলনের প্রয়োজনীয়তা ফুরিয়ে আসে এবং বিলুপ্তির পথেই ধাবিত হয় ।
3 hours ago · LikeUnlike ·
o
Ranjan Kumar Nandy সংস্কারবাদীরা যুগে যুগেই আক্রমণের শিকার হয়েছেন - এটাও নতুন কিছু না । হালের মান্নান ভুইয়া, জলিল, তোফায়েল রাও উদাহরন বইকি
3 hours ago · LikeUnlike ·
o
Dwaitadwaita Biswas দ্বৈতাদ্বৈত বিশ্বাস Ranjan Kumar Nandy@ apnar last 2ta post jahok bujhlam. kintu er ager ta kichui bujhlam na. ki prosongey ki bollen bujha gelona! :(
2 hours ago · LikeUnlike ·
o
Ranjan Kumar Nandy
To Dwaitadwaita biswas:
কুলদা রায়ের নিবন্ধ থেকে (১) দ্বারকানাথ প্রসঙ্গে ঃ "এক সময় রাজা রামমোহনের সঙ্গে তার পরিচয় হল—তখন তাঁর একেশ্বরবাদে বিশ্বাসী হলেন। কিন্তু বাড়িতে দীর্ঘদিনের প্রচলিত লক্ষ্মী-জনার্দন, দুর্গা, জগদ্ধাত্রী, সরস্বতী ইত্যাদি পূজ...া ধুমধামের সঙ্গেই হত।কিন্তু নিজে পূজায় বসেন নি। তিনি গায়ত্রী মন্ত্রটি জপ করতেন। বিদেশে বসেও গায়ত্রী মন্ত্র জপ শেষ না হলে কোনো রাজপরিবারকেও দর্শন দিতেন না। " http://www.sachalayatan.com/porimanob/35043
এক ই নিবন্ধে দেবেন্দ্রানাথ প্রসঙ্গে (২) ১৮৩৯ সালে অক্টোবর মাসে দেবেন্দ্রনাথের বয়স যখন বাইশ বছর তখন তাঁদের বাড়িতে দুর্গাপূজা হচ্ছিল। তিনি পূজার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করলেন। তিনি পূজার সময়ে বাড়ির অন্যপ্রান্তে পুকুরের ধারে চুপ করে বসেছিলেন।

যখন কেউ নতুন ধর্ম গ্রহন করে তখন পুরোন ধর্মের ধর্মীয় আচরন গুলো আর অনুসরন করেন না - দ্বারকানাথ বা দেবেন্দ্রানাথ এর আচরন ই প্রমান করে তারা নিজেরাও ব্রাহ্মধর্মমত কে নতুন একটা ধর্ম বলে ভাবতেন না । ভাবলে কিছুতেই তারা নিজের বাড়ীতে হিন্দু পুজা অনুষ্ঠিত হতে দিতেন না বা গায়ত্রী মন্ত্র জপ করতেন না । এবার হয়ত আম্নাকনাকে বোঝাতে পেরেছি

আমি ব্যাক্তিগত ভাবে ব্রাহ্ম সমাজের অনুসারিদের তখনকার হিন্দু ধর্মের সবচেয়ে প্রগতিশীল অংশ বলেই ভাবি ও শ্রদ্ধা করি ।See More
2 hours ago · LikeUnlike ·
o
হৃৎকমল Hrithkomol
Ranjan Kumar Nandy@ ঐ অংশটা আমিও বুঝতে পারছিলাম না। ধন্যবাদ দুজনকেই। যদিও কুলদার দ্বারকনাথ সম্পর্কিত বর্ণণা আংশিক তবু রঞ্জনবাবু আপনি বোধ হয় তারও আবার একটা বিশেষ অংশ গ্রহণ করেছেন। পরের অংশ বাদ দিয়ে। যে কথাটা সত্য তা হল দ্বারকনাথ তার পুত্র দে...বেন্দ্রনাথ থেকেও অনেক বেশি রেডিক্যাল হয়েছিলেন। এমনকি রবীন্দ্রনাথ নিজেও তাঁর পিতা দেবেন্দ্রনাথ কে তাঁর শিথিল স্বভাবের জন্য যতটা না সম্মান সমীহ করতেন তার থেকে বেশি ভক্তি ছিল তাঁর ঠাকুরদা দ্বারকনাথের প্রতি। কিন্তু রবীন্দ্রনাথ নিজেও সামাজিক ভাবে ওতটা রেডিক্যাল ছিলেন না। সে প্রসঙ্গে পরে লিখব যদি সুযোগ হয়।
কিন্তু এখানে আলচ্য বিষয় এটা নয় রবীন্দ্রনাথ কতটা ব্রেহ্ম আর কতটা সনাতন হিন্দু আর ব্রেহ্ম মিশ্রণ ছিলেন। আলচ্য বিষয় হল ব্রেহ্ম কে হিন্দুত্বে দেখা যায় কি না। আপনি জানাচ্ছেন আপনি তাদের 'তখনকার হিন্দু ধর্মের সবচেয়ে প্রগতিশীল অংশ বলেই' মনে করেন। সে ভাবে দেখলে নিরিশ্বরবাদি বৌদ্ধ ধর্মও হিন্দু বলে চালানো যায়! যেমন হিন্দু ধর্মের চতুর্বণ হায়ারার্কি নির্ভর জন্মান্তর (reincarnation) বাদ দিলে এটা আর হিন্দু ধর্মই থাকে না। ব্রেহ্মরা হায়ারার্কিতে বিশ্বাসী ছিল না। তাদের প্রার্থনা ব্যবস্থাও অনেকটা খ্রিষ্টান্দের মত ছিল। ইংরেজি শিক্ষিত এই এলিটরা সামাজিক সংস্কারকের কাজ করতে পেরেছে এই কারণেই। আরেকটি জবাব লুকানো আছে আপনার নিজেরই পোস্টের মধ্যে। যেমন বলেছেন - জীবিত নজরুল 'কাফের' ছিল মৃত নজরুল 'মুসললমান' হয়ে উঠেছে তার মধ্যে। আপনি অলক্ষ্যে যে 'মুসলিম বাংলা' বলেছেন সেটা আমি আরও তত্ত্বগত ভাবেই মনে করি সঠিক। বাংলেদেশের জন্ম ও 'বাঙালী জাতীয়তাবাদ' এক অর্থে 'মুসলিম বাঙালী জাতীয়তাবাদ' এবং সেই কারণেই হিনমন্যতাগ্রস্ত মুসলমান নেতারা নজরুলের নিজ নামে 'ইসলাম' থাকায় জাতীয় কবি করেছিল মনে করি। না হলে মাইকেল মধুসূদনের জাতীয় কবি হওয়ার দাবি সর্বার্থেই বেশি ছিল। যাই হোক আপনার যে পয়েন্টা এখন আপনাকেই গিলতে হবে সেটা হল নজরুলেরই মত জীবিত ব্রেহ্মরা যবনদোষে দোষী ধর্মচ্যুত অপাংক্তেয় ছিল, আজ মৃত ব্রেহ্মরা আবার হিন্দুত্বে বরিত হচ্ছে!
আরেকটি প্রসঙ্গঃ ব্রেহ্মদের সামাজিক 'প্রয়োজনীয়তা ফুরিয়ে' যাওয়ায় তারা ভেঙে পড়েনি। তাদের অভন্তরীণ সংকট ও সুসংবদ্ধ থিওলজিক্যাল রূপরেখার দূর্বলতা সামাজিক বাস্তবতার সঙ্গে খাপখাওয়ানোর সংকটজনিত কারণে এরা ভেঙে পড়েছে। শ্রেনীগত কারণও ছিল। সমাজের অশিক্ষিত নিম্নশ্রেণীর মধ্যে তাদের শেকড় ছিলই না বলা চলে। যা ছিল মূলত শহরের শিক্ষিত উদার শ্রেনীর মধ্যেই। মজা হল সে দিন যদি ব্রেহ্মকে হিন্দু ধর্মের অংশ বলে সামাজিক ভাবে গ্রহণ করে নিত তাহলে হয়ত ব্রেহ্মধর্ম extinct হত না। এটাই হল প্যারাডক্স।See More
39 minutes ago · LikeUnlike ·
o
Kulada Roy
নন্দী বাবু, সে সময় কিশোর দেবেন্দ্রনাথকে দ্বারকানাথ পাঠানো হয়েছিল রাজা রামমোহনের নিকট। বিষয় জোড়া সাকোর ঠাকুরবাড়িতে অনুষ্ঠিতব্য দুর্গাপূজার নিমন্ত্রণ করা। দেবেন্দ্রনাথ লিখেছেন--'' চলিত প্রণালী অনুসারে আমি রাজাকে বলিলাম, ' রামমণি ঠাকুরের বাড়ি...তে আপনার দুগোর্ৎসবের নিমন্ত্রণ।'
রাজা ব্যগ্রভাবে উত্তর করিলেন, 'আমাকে পূজায় নিমন্ত্রণ?''
রামমোহন প্রতিমাপূজা ও পৌত্তলিকতার বিরোধী এবং সমালোচক বলেই এই বিস্ময়সূচক বাক্য।
ডেভিড হেয়ার সাহেবকে নিয়ে কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন রামমোহন। তৎকালীন হোমড়া চোমড়া ছিলেন হিন্দুধমীর্য় ব্যক্তিবর্গ। তাঁরা বললেন--ম্লেচ্ছ রামমোহন থাকলে তারা এই উদ্যোগে নাই। বিশ্ববিদ্যালয়টি হোক এই কামনায় রামমোহন সে কমিটি থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করেছিলেন।
ব্রাহ্মধর্মের লোকজন নিজেদের হিন্দুধর্মের শাখা হিসাবে মনে করতেন না। এটা ছিল হিন্দু ধর্ম, খ্রীস্টান এবং ইসলাম ধর্মের আলোকে একশ্বরবাদি ধর্মপ্রচেষ্টা। রামমোহন আরবী ও উর্দু ভাষায় সুপণ্ডিত ছিলেন। রামমোহনকে নিয়ে আলাদা একটা পর্ব করা যেতে পারে।

একটু রস করা যাক এই গুরুগম্ভীর আলোচনার মাঝখানে--
তপন রায়চৌধুরী লিখেছেন--জ্যাঠামশাইয়ের ছোটবেলায় নাকি স্থানীয় জনহিতৈষী ব্রাহ্ম যুবকবৃন্দ (বরিশাল শহরে) প্রভাতফেরিতে বের হতেন, খোল-করতাল সহযোগে কুসংস্কার-নিবারনী কীর্তন করতে করতে,--(রাগ ভৈরবী, ঝাপতাল)
''প্রভাতে উঠিয়া দেখ মাকুন্দ চো-ও-পা-আ।
বদন ভরিয়া বল 'ধোওপাআ, ধোওপাআ।।
সনাতনপন্থীরা (হিন্দু) বিরক্ত হয়ে ব্রাহ্মদের ব্যঙ্গ করে প্রার্থনা সভা বসালেন। প্রার্থনা হত, ''হে পরম-কারুণিক পরমেশ্বর, তুমি আমাদের অন্ধকার হইতে আলোকে লওয়া যাও। তোমার ইচ্ছাই পূর্ণ হউক। কিন্তু পিতঃ, তোমার এই মঙ্গলময় সৃষ্টিতে অবিচার কেন? তুমি জোনকীর পশ্চাতে আলোক দিয়াছ, আমাদের পশ্চাশে ত দাও নাই প্রভু?''

ব্রাহ্ম এবং হিন্দুধর্মের মধ্যে কিঞ্চিত পার্থক্য আছে--যেমন আছে বৌদ্ধ এবং হিন্দু ধর্মের মধ্যে। কেউ বৌদ্ধদের হিন্দু বলে না। যদিও ত্রিপিটক ও উপনিষদের যথেষ্ট মিল আছে।
আর আমার এই রচনাটি কোনো অর্থেই কোনো ধর্মের শ্রেষ্ঠত্ব অথবা অধমত্ব নিয়ে আসর নয়। ধর্ম যার যার--রাষ্ট্র সবার : এটাই লেখকের সারকথা। কথা হল রবীন্দ্রনাথকে সাম্প্রদায়িকতায় দুষ্ট করার যে অপচেষ্টাটি আছে তার কুটকচালটি খুলে ফেলাই এই রচনাটির মহৎ উদ্দেশ্য। ভুল বুঝবেন না।See More
13 minutes ago · LikeUnlike ·

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন